আজ || মঙ্গলবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১
শিরোনাম :
 


গোপালপুরে করোনায় সেবার হাত বাড়ালেন কোভিড চিকিৎসক ফোরাম

জয়নাল আবদীন:
বাল্যে অনেকেই ডাক্তার হবার স্বপ্ন দেখেন। মানবতার সেবায় নিজেকে উৎসর্গ করার প্রত্যয় নেন। মেধাবী ও সংযমীরা এ পেশায় এসে সুনামও কুড়ান। একজন চিকিৎসক সরকারি কর্মস্থলে দায়িত্ব পালন করেন। তার ফাঁকে অনেকেই এলাকার মানুষের সেবায় এগিয়ে আসেন। এ আসা শেকড়ের টানে। পড়শীর টানে। এতে হয়তো তারা তৃপ্তিও পান। এমন সেবায় চিকিৎসা বাণিজ্য থাকেনা। থাকে মমত্ববোধ, এলাকাপ্রীতি ও ভালোবাসা।

পৃথিবী জুড়ে চলছে কোভিড ১৯ এর মহাদাপট। বাংলাদেশও নিস্তার পাচ্ছেনা। প্রতিদিনই  আশঙ্কাজনক হারে ছড়িয়ে পড়ছে। ভারী হচ্ছে মৃত্যুর পাল্লা। সরকার সাধ্যমত চেষ্টা চালাচ্ছেন। দেশজুড়ে চলছে ভ্যাকসিন কার্যক্রম। কাজ করছে সরকারের সব সেক্টর। তবে প্রথম সারির ভূমিকায় স্বাস্থ্যকর্মী ও চিকিৎসকরা। শেষাবধি আক্রান্তরা এদেরই দ্বারস্থ হচ্ছেন।

গোপালপুরেও করোনার প্রকাপ বাড়ছে। স্বাস্থ্য বিভাগ ও উপজেলা প্রশাসন যথাভাবে সরকারি নির্দেশনা বাস্তবায়ন করছেন। কিন্তু মানুষের বেপরোয়া স্বভাব, আইন ও স্বাস্থ্যবিধি না মানার প্রবনতা সমস্যাকে বেগবান করছে। তবে ভ্যাকসিন কার্যক্রমকে সহজতর করা হয়েছে। বিশেষ করে রেজিষ্ট্রেশন কার্যক্রম। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স চত্বরে চালু হয়েছে ফ্রি রেজিষ্ট্রেশন ক্যাম্প। গত ২৮ জুলাই এ ক্যাম্পের উদ্বোধন করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. পারভেজ মল্লিক।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আলিম আল রাজী জানান, গ্রামের সাধারণ মানুষ নিধার্রিত এ্যাপসে ভ্যাকসিনের রেজিষ্ট্রেশন করতে পারেন না। তাই  বিনামূল্যে রেজিষ্ট্রেশনের ব্যবস্থা করা হয়েছে। করোনা পজিটিভ রোগীর চিকিৎসা পদ্ধতি ও নিয়মকানুন নিয়ে একটি হ্যান্ডবিল প্রচারের ব্যবস্থা করা হয়েছে। প্রতিদিনই একটি অনলাইন গ্রুপের মাধ্যমে করোনা পরিস্থিতির সর্বশেষ আপডেট প্রকাশ করা হচ্ছে। ইতিমধ্যে করোনা রোগীর জন্য ২০টি বেড প্রস্তুত করা হয়েছে। প্রয়োজনীয় অক্সিজেন সিলিন্ডার নিশ্চিত করা হয়েছে।

এদিকে গোপালপুরে করোনা চিকিৎসায় উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগকে কার্যকরভাবে আরও সহযোগিতা করার জন্য এগিয়ে এসেছেন ‘গোপালপুর উপজেলা কোভিড ১৯ চিকিৎসক ফোরাম’। গত শুক্রবার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স মিলনায়তনে ফোরামের মিটিং অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আলিম আল রাজী। উপস্থিত ছিলেন আনোয়ার খান মর্ডান হাসপাতালের মেডিসিন ও বক্ষব্যাধি বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা. রফিকুল ইসলাম, বিএসএমএমইউ এর সাজার্রী বিশেষজ্ঞ ডা. বিদ্যুৎ দেবনাথ, ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ডা. সুব্রত পাল, এনাম মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালের এনাটমী ও অর্থাপেডিস বিভাগের প্রভাষক ডা. শুভাশীষ পাল, বারডেম জেনারেল হাসপাতালের এইচএমও ডা. প্রীতম সরকার, অধ্যাপক মাহফুজুর রহমান দোলন, প্রেসক্লাব সভাপতি জয়নাল আবেদীন প্রমুখ। ডা. রফিকুল ইসলামকে ফোরামের প্রধান সেবাদানকারি চিকিৎসক এবং ডা. আলিম আল রাজীকে প্রধান সম্বয়কারি করে ৪ সদস্য বিশিষ্ট সমন্বয় কমিটি করা হয়।

সমন্বয়কারি অধ্যাপক মাহফুজুর রহমান দোলন জানান, গোপালপুরে জন্মগ্রহণ করেছেন এবং সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে চাকরি করেন অথবা চিকিৎসা কর্মে গবেষণায় নিয়োজিত রয়েছেন, এমন ৩০ জন ডাক্তার ও প্রাকটিশনার ফোরামে অন্তর্ভুক্ত হয়েছেন। এসব ডাক্তাররা এলাকার মানুষের টানে অনলাইনে করোনার সেবা দিবেন। গোপালপুর উপজেলা হাসপাতালের মেডিক্যাল অফিসাররা তো থাকছেন ই।

ফোরামের কার্যক্রম সম্পর্ক স্থানীয় সংবাদকর্মীদের আনুষ্ঠানিক জানানো হয়, যারা করোনায় আক্রান্ত হয়ে বাড়িতে চিকিৎসা নিচ্ছেন অথবা লক্ষণ নিয়ে বাসায় থাকছেন কিন্তু পরীক্ষার জন্য হাসপাতালে আসছেন না, অক্সিজেনের মাত্রাও দেখাচ্ছেননা, অথবা শেষ মুহূর্তে হাসপাতালে আসছেন তারা সেবার আওতায় আসবেন। উপজেলার সব ইউনিয়ন ও পৌরসভার সকল ওয়ার্ডে একজন করে মেডিক্যাল এসিষ্ট্যান্ট সর্বক্ষণ রোগীদের খোঁজ নিবেন। সহযোগিতা করবেন ‘আমরা গোপালপুরবাসী ফেসবুক গ্রুপ’, ‘সেভ লাইভ ব্লাড ডোনার এসোসিয়শন’, ‘শুভশক্তি বাংলাদেশ’ এবং ‘ব্রাক’ কর্মীরা। যদি কারো উন্নত চিকিৎসার জন্য কোন করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালের প্রয়োজন হয় ফোরাম তাদেরকে সহযোগিতা করবেন। উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগের মাধ্যমে ২৪ ঘন্টা কারিগরী, বস্তুগত ও পরামর্শমূলক সহযোগিতা করবেন এসব চিকিৎসকরা। এলাকার মানুষের দুর্দিনে চিকিৎসা সেবা নিয়ে দাড়ানোই  ফোরামর মূল উদ্দেশ্য বলে জানানো হয়।

  • 285
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    285
    Shares

মন্তব্য করুন

কমেন্ট করেছে


Top
error: Content is protected !!